কোডিং শেখার গুরুত্ব ও সম্ভাবনা

ধারণা করা হচ্ছে যে সামনের বিশ্বে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দারুণভাবে ভূমিকা রাখবে। সেটা ভালো হবে কি মন্দ হবে তা নিয়ে অনেক বিতর্ক হচ্ছে। তবুও এটা নির্দিধায় বলা যায় যে তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর একটি বিশ্ব আমাদের তৈরি হবে। আর সেই বিশ্বে পদচারণা করবে আজকের দিনের নতুন প্রজন্মরা- আপনার সন্তানরা। সেই বিশ্বে আপনার সন্তান কেমন করবে তা অনেকখানিই নির্ভর করবে তার “তথ্য প্রযুক্তি জ্ঞানের উপর”। তাই বর্তমান বিশ্বের অভিভাবকরা চাচ্ছেন তাদের সন্তানরা যেন ছোট থেকেই তথ্য প্রযুক্তির উপর বেসিক কিছু জ্ঞান অর্জন করুন। তথ্য প্রযুক্তি বলতে যদি আপনি শুধুমাত্র ফেসবুককে বুঝেন তবে মারাত্মক ভুল করবেন। আপনি যেটি ব্যবহার করছেন তা একটি অ্যাপ মাত্র। ফেসবুক, ইউটিউব, গুগল এই সমস্ত অ্যাপ ও প্লাটফর্মের পিছনে রয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি এর বিশাল প্রয়োগ। সেখানে কাজ করছেন লক্ষাধিক প্রযুক্তিবিদরা। এই সমস্ত প্লাটফর্মগুলিতে তথ্যকে সহজেই প্রদর্শন করার জন্য “কম্পিউটার পোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ” বা কম্পিউটার কোড ব্যবহার করেন প্রযুক্তিবিদরা। 

আমরা যদি আমাদের শিশু-কিশোরদের একাডেমিক সাফল্য ও স্মার্ট করতে চাই তাহলে প্রতিটি শিশুকে কোড শেখাতে হবে। বাচ্চাদের জন্য কোডিং শুধুমাত্র তাদের গণিত এবং লেখার দক্ষতা উন্নত করতে সাহায্য করে না বরং পরবর্তি সময়ে তাদের কর্ম জীবনে দক্ষতার নতুন মাত্রা যোগ করবে । কেন কোডিং শেখা গুরুত্বপূর্ণ এবং কেন ছোটবেলা থেকেই স্কুলে কোডিং শেখানো উচিত – তার বিভিন্ন কারণ রয়েছে। শিশুরা যত তাড়াতারি কোড করতে শিখবে, তাদের সাফল্য অর্জনের সুযোগ তত দ্রুত ধরা দিবে।

তাহলে প্রশ্ন হলো, কোডিং কী ?

কোডিং হল কম্পিউটারের সাথে যোগাযোগের একটি পদ্ধতি। এটি এমন একটি ভাষা ব্যবহার করে যা কম্পিউটারকে নির্দিষ্ট ফাংশন সম্পাদন করার জন্য সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা প্রদান করে । কোডিং এর মাধ্যমে আমরা  কম্পিউটার সফটওয়্যার, ওয়েবসাইট, অ্যাপস এবং ভিডিও গেমের মতো ডিজিটাল প্রযুক্তির গুরুত্বপূর্ণ জিনিস তৈরি করতে পারি।

ছবি: পাইথন ভাষাতে লেখা পোগ্রামিং কোড এর কিছু অংশ

আপনি কী করতে চান, তার উপর নির্ভর করে বিভিন্ন ধরণের বিভিন্ন কোড রয়েছে। তাছাড়া রয়েছে  বিভিন্ন “প্রোগ্রামিং ভাষা” যার প্রত্যেকটির নিজস্ব নিয়ম আছে । তবে, কোডিং মূলত একটি কম্পিউটারকে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা প্রদান করে আপনার পছন্দ মত ফলাফল তৈরি করে দিবে ।

আপনার বাচ্চাদের কোড শিখতে সাহায্য করুন

কেন প্রতিটি শিশুর কোড শেখা উচিত সে সম্পর্কে কথা বলার আগে, আপনি কীভাবে আপনার সন্তানকে কোড শেখাতে পারেন তা খুঁজে বের করতে এখানে এসেছেন। আপনার নিজের কোনো কোডিং অভিজ্ঞতা না থাকলেও বাচ্চাদের কোড শেখানো শুরু করা সহজ!  বাচ্চাদের কোড শেখানো শুরু করার অনেক উপায় রয়েছে। এখানে কিছু পরামর্শ তুলে ধরা হলঃ 

স্টার্ট আউট আনপ্লাগড

আপনি আজ আপনার বাচ্চাদের সাথে কোডিং শুরু করতে পারেন! এটি সহজ, এবং আপনার যা প্রয়োজন তা হল আপনার বাড়ির আশেপাশে থাকা বিভিন্ন জিনিস । প্রথমে কোডিং এর মূল বিষয়গুলি শেখা শুরু করতে, আপনার কম্পিউটারের প্রয়োজন নেই! আমাদের সবচেয়ে জনপ্রিয় আনপ্লাগড কোডিং ক্রিয়াকলাপগুলির মধ্যে একটি হল কার্ডের ডেক দিয়ে কোড শেখা ! আপনি আমাদের এই ওয়েবসাইটে কার্ডের ডেক দিয়ে কীভাবে কোড শিখবেন তা শিখে নিতে পারেন, অথবা আপনি এখানে আমাদের আনপ্লাগড কোডিং কার্যকলাপের সম্পূর্ণ তালিকা দেখে নিতে পারেন।

অ্যাপের মাধ্যমে কোড শেখা

স্কিন টাইম কে শিক্ষামূলক করার জন্য অনেকগুলি আশ্চর্যজনক কোডিং অ্যাপ রয়েছে যা আপনার বাচ্চাদের কোড করতে শিখাতে পারে । এমনকি Minecraft এর মতো জনপ্রিয় গেমগুলির একটি শিক্ষা সংস্করণ রয়েছে যা বাচ্চাদের কোড শিখতে সাহায্য করে। এমন দুটি প্লাটফর্ম হল : https://swiftplayground.org এবং https://scratch.mit.edu 

অনলাইনে কোডিং শেখা

অনলাইন বিভিন্ন কোডিং শেখার জন্য রয়েছে অনেক সাইট। সেখানে উদাহরণ সহ ভিডিও টিউটোরিয়ালগুলি শিখতে সাহায্য করবে। তেমন কিছু সাইট হল : https://www.datacamp.com/ এবং https://www.learnpython.org 

টিউটর দিয়ে কোড শেখান

লার্নটাইম (learntime.com.bd) তাদের প্রশিক্ষিত শিক্ষকদ্বারা অনলাইনে লাইভে ভিডিওর মাধ্যমে একজন ছাত্রের জন্য একজন শিক্ষকের মডেলে ছাত্র/ছাত্রীদের সুবিধাজনক সময়ে কোড শেখান। বর্তমানে তারা পাইথন পোগ্রামিং কোড শেখাচ্ছে কেননা শিশু-কিশোরদের জন্য এটি শেখা সহজ। আপনি আপনার পছন্দমতন সময়ে তাদের একজন শিক্ষককে দিয়েই আপনার সন্তানকে শেখান শুরু করতে পারেন। 

কোডিং শেখা কেন গুরুত্বপূর্ণ?

শিশু-কিশোরদের কোডিং শিখতে হবে কেন ? হয়ত এই প্রশ্নটি আপনাদের মনে উঁকি দিতে পারে। কিন্তু কোডিং শেখার অনেক কারণ আছে, সেগুলোর নিম্নে পর্যালোচনা করা হল-

১।কোডিং সমস্যা-সমাধানে দক্ষ করে তুলে   

কোডিং জানা শিশুরা কম্পিউটার কীভাবে কাজ করে তা সহজে উপলব্ধি করতে পারে। এটি তাদের শেখায় যে কীভাবে সফ্টওয়্যার প্রকৌশলীরা একটি যৌক্তিক এবং সৃজনশীল উপায়ে সমস্যাগুলি সমাধান করার জন্য গণিত ব্যবহার করে। ফলে শিশুরা অল্প বয়সেই এই দক্ষতাগুলি শিখতে পারবে।

সমস্যাগুলি সমাধান করার সক্ষমতা এমন একটি বৈশিষ্ট্য যা সাধারণভাবে জীবনে অনেক কার্যকর ভূমিকা পালন করে। আমরা সকলেই চাই আমাদের সন্তানরা চমৎকার সমস্যা সমাধানকারী হয়ে উঠুক যাতে তারা যে কোনো প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে পারে। কোড শেখা বাচ্চাদের অল্প বয়সে এই ধরনের দক্ষতা শেখার সুযোগ দেয় এবং এটি তাদের জীবন চলার পথে সাহায্য করতে পারে। কোডিং শেখার জন্য এটি একটি বড় কারণ।

২। কোডিং একটি চ্যালেঞ্জ দেয় এবং তাদের বিকাশে সহায়তা করে

যখন শিশুকিশোররা কোড করতে শেখে, তারা ব্যর্থতার পরও ফিরে আসার ক্ষমতা বিকাশ করে। তারা শিখেছে যে ব্যর্থতা অগত্যা একটি খারাপ জিনিস নয় এবং আসলে, এটি প্রায়শই ইতিবাচক কিছু হতে পারে কারণ এটি শেখার সুযোগ হিসাবে কাজ করে। বাচ্চাদের কোড করার জন্য এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণগুলির মধ্যে একটি। আপনি যখন ব্যর্থ হন এবং আবার চেষ্টা করেন তখন আপনি আপনার ভুল থেকে শিখতে পারেন। কোডিং বাচ্চাদের চেষ্টা করার ক্ষমতা দেয় যতক্ষণ না তারা সফল হয় । 

৩।কোডিং চিন্তা করতে শেখায়

 স্টিভ জবস বলেছেন,” কম্পিউটার হল মনের জন্য একটি সাইকেল”। কোডিং শিশু-কিশোরদের চিন্তা করতে শেখায়। কম্পিউটার প্রোগ্রামিং শুধুমাত্র কোডের লাইন টাইপ করতে শেখানোর বিষয়ে নয়। এটি বাচ্চাদের কীভাবে ভিন্নভাবে চিন্তা করতে হয় তাও শেখায় । কার্যকরভাবে কোড করতে সক্ষম হওয়ার জন্য, একজন প্রোগ্রামারকে যৌক্তিক চিন্তাভাবনা ব্যবহার করতে হবে। তারা একটি বড় সমস্যা দেখতে সক্ষম হতে হবে এবং একটি কার্যকর পদ্ধতিতে এটি সমাধান করার জন্য এটিকে ছোট ছোট টুকরো টুকরো করে ফেলতে হবে। এটিকে ডিকমপজিশন বলা হয় এবং এটি গণনামূলক চিন্তাভাবনার অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য।

কোড শেখায় অংশগ্রহণকারী শিশুদের একটি অস্পষ্ট ধারণা দেওয়া হয় এবং তাদের সৃজনশীলতা ব্যবহার করার সুযোগ প্রদান করা হয় । যদি প্রথম সমাধান কাজ না করে, তবে তারা অন্য একটি সমাধান বের করার চেষ্টা করে । যদি এটি কাজ না করে, সমস্যাটি সমাধান না হওয়া পর্যন্ত তারা আবার চেষ্টা করে। কোডিং এই ধরণের চিন্তাভাবনা বিকাশে সহায়তা করে এবং এই ধরণের চিন্তাভাবনার দক্ষতাগুলি খুব বেশি চাওয়া হয়।

৪। কোডিং সৃজনশীলতা বাড়ায় 

কোডিং শেখা গুরুত্বপূর্ণ কারণ কম্পিউটার প্রোগ্রামিং শিশুদের সৃজনশীলতা পরীক্ষা করতে শেখায় এবং তাদের আত্মবিশ্বাসী হওয়ার সুযোগ প্রদান করে। তারা এমন কিছু ডিজাইন করার সুযোগ পাবে যা সম্পূর্ণ তাদের নিজস্ব। শিশুরা তাদের পছন্দের কিছু তৈরি করার মাধ্যমে যে প্রতিক্রিয়া পায় তা থেকে তারা সাফল্য লাভের প্রকৃত স্বাদ আহরণ করে। একটি ভাষা শেখা  বা একটি বাদ্যযন্ত্র বাজাতে শেখার জন্য শিশুদের অনুপ্রেরণার প্রয়োজন আছে যা সে কোডিং শেখার মাধ্যমে লাভ করতে পারে । কারণ কোডিং শেখা সহজ, বিশেষ করে শিশুদের জন্য । বাচ্চারা যখন কোড করতে শেখে তখন এটি তাদের আত্মবিশ্বাসী হওয়ার এবং মজাদার ও উত্তেজনাপূর্ণ উপায়ে কিছু তৈরি করার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়।

৫। কম্পিউটার প্রোগ্রামিং এর সম্ভাবনা  

গত দুই যুগে বিশ্ব কীভাবে দ্রুত বিকশিত হচ্ছে তা আমরা দেখছি । ডিজিটাল প্রযুক্তির এই যুগে কোডিং এর গুরুত্ব অনস্বীকার্য । শুধু প্রযুক্তি খাত নয় , বর্তমান বিশ্বে ক্রমবর্ধমান  অসংখ্য ব্যবসা রয়েছে যা কম্পিউটার কোডের উপর নির্ভর করে ।শিশুকিশোররা যদি কোড করতে শেখে, সে ভবিষ্যতে আরও বেশি কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে সক্ষম হবে। শুধুমাত্র প্রযুক্তি সংক্রান্ত ক্ষেত্রই নয় চিকিৎসা, অফিস-আদালত থেকে শুরু করে আমার পাড়ার মুদির দোকনটিতেও এখন তথ্যপ্রযুক্তি ভূমিকা রাখছে। আপনার সন্তান যে ক্ষেত্রেই কাজ করুক না কেন তার কোডিং স্কিল তার ক্যারিয়ার জীবনে ভূমিকা রাখবে। 

৬।সফটওয়্যার শিল্পে দক্ষতার অভাব রয়েছে

অভিজ্ঞ কম্পিউটার প্রোগ্রামারদের চাহিদা রয়েছে এবং প্রযুক্তির অগ্রগতির সাথে সাথে প্রতিদিন কর্মজীবনের সুযোগ বাড়ছে। যে কর্মচারীরা কোড করতে পারে তারাই ভবিষ্যত এবং যে কোনো শিল্পে তাদের খুব বেশি খোঁজ করা হয়। যেহেতু চাহিদার তুলনায় দক্ষ কম্পিউটার প্রোগ্রামারদের সংখ্যা অনেক কম, তাই ভালো প্রতিষ্ঠানগুলো উচ্চ বেতনে তাদের হাইয়ার করে থাকে। যদি শিশুরা অল্প বয়সে কোড করতে শেখে, তবে তাদের অভিজ্ঞতা অল্প বয়স থেকে শুরু হবে এবং তারা সফ্টওয়্যার শিল্পে ভালো ক্যারিয়ার গঠন করতে সক্ষম হবে। 

৭। কোডিং বাচ্চাদের গণিত শেখা আনন্দদায়ক করে তুলে  

কোডিং হল গণিতের ভাষা। ডেটা সংগঠিত করা এবং বিশ্লেষণ করা সহ অনেক দক্ষতা কোডিং এর সাথে জড়িত আছে। বাচ্চারা কোডিং করার সময় তাদের গণিত দক্ষতা বাড়াতে পারে । শিশুরা নিজস্ব কিছু তৈরি করার সময় তাদের যুক্তিবিদ্যা এবং গণনার দক্ষতা ব্যবহার করে গণিতকে আরও আকর্ষণীয় এবং মজাদার করে তুলতে পারে। 

৮। মজা করার সময় কোডিং শেখা সম্ভব 

আপনি যদি আপনার সন্তানকে আনন্দদায়ক কিছু দিতে চান যা শিক্ষামূলকও হবে এবং তাকে শিখতে সাহায্য করবে, কোড শেখা হল নিখুঁত উপহার। কোডিং কেন গুরুত্বপূর্ণ তার কারণগুলি সম্পর্কে আপনি পড়তে পারেন, তবে মজা করার সময় তাদের একটি চ্যালেঞ্জ দেওয়া মূল বিষয়গুলির মধ্যে একটি! শিশুরা বিভিন্ন দক্ষতা শিখবে এবং অনুশীলনের মাধ্যমে, কিছু গুরুত্বপূর্ণ দক্ষতা অর্জন করবে যা তাদের জীবনের সমস্ত ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে, এবং তারা যদি মজা করার সময় এই সব শিখতে পারে তবে তা কেন শিখবেনা ? 

পাইথন কোডিং

বিশ্বে বর্তমানে প্রায় ২৫০ টি কোডিং এর ভাষা রয়েছে (তথ্যসূত্র: ১) এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছে পাইথন কোডিং। পাইথন যাত্রা শুরু করে নেদারল্যান্ড এর প্রযুক্তিবিদ Guido van Rossum এর মাধ্যমে ১৯৯১ সনে। বর্তমানে পাইথন এত জনপ্রিয়তার মূল কারণ হল এই ভাষা ব্যবহার করে গুগল, ফেসবুক থেকে শুরু করে পৃথিবীর প্রায় সব ডাটা সাইন্স এর প্রযুক্তিবিদগণ। বিশ্বের প্রায় সব প্লাটফর্ম ও এ্যাপের পিছনের ইঞ্চিনে এটি ব্যবহৃত হয় এবং এটি সম্পূর্ণ অপেনসোর্স এবং ফ্রি। পাইথনের NumPy, Pandas, Google’s TensorFlow, and Facebook’s PyTorch বেশ জনপ্রিয় কিছু অংশ যা বহুল পরিমানে ব্যবহৃত হচ্ছে। প্রায় ১১ মিলিয়ন তথ্যপ্রযুক্তিবিদ এখন পাইথন ব্যবহার করছে (তথ্যসূত্র: ২) ।

চিত্র: বিশ্বে বহুল প্রচলিত কিছু কোডিং এর নাম

কোডিং শেখার জন্য পাইথন কেন সবাই পছন্দ করছে? – তার কারণগুলি নিম্নে দেয়া হল: 

১। পাইথন শিশুকিশোরদের জন্য উপযুক্ত একটি প্রোগ্রামিং ভাষা

এই ডিজিটাল প্রযুক্তির যুগে, কোড শেখার  গুরুত্ব ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে  । কোডিং এখন আর শুধু প্রোগ্রামার এবং কম্পিউটার বিজ্ঞানীদের জন্য নয়, বরং যেকোনো ক্ষেত্রেই এটি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে ।  আজকাল  বহু প্রোগ্রামিং ভাষার মধ্যে কোনটি শিখতে হবে তা নির্ধারণ করা কঠিন । যদি আপনার বাচ্চারা কোডিং শিখতে আগ্রহী হয়, তাহলে আপনার সন্তানের আগ্রহের উপর ভিত্তি করে কিছু নির্বাচন করা ভাল হবে – বিশেষত পাইথনের মতো সহজে শেখার ভাষা।

পাইথন শিশু-বান্ধব একটি কোডিং ভাষা । পাইথন প্রোগ্রামিংয়ের মৌলিক বিষয়গুলি শিখতে পাঁচ থেকে ১০ সপ্তাহ সময় লাগতে পারে। আপনি যদি এখন আপনার বাচ্চাদের একটি কোডিং হলিডে প্রোগ্রামের জন্য সাইন আপ করার কথা ভাবেন, তাহলে  নিচের  পাঁচটি কারণ  থেকে আপনি বুঝতে সক্ষম হবেন কেন পাইথন দিয়ে প্রোগ্রামিং ভাষা শেখা শুরু করা উচিত:

২। পাইথন সহজবোধ্য ভাষা 

একটি প্রোগ্রামিং ভাষার সাথে প্রথম এনকাউন্টার যতটা সম্ভব সহজ হওয়া উচিত। অন্যান্য প্রোগ্রামিং ভাষার বিপরীতে, পাইথন শেখা সহজ। পাইথনের নির্দেশাবলী এবং সিনট্যাক্স (কোড কীভাবে লিখতে হবে তার নিয়ম) তুলনামূলকভাবে সহজ, যা শুরু করার জন্য কোডিং-এর পূর্ব অভিজ্ঞতা নেই এমন বাচ্চাদের জন্য সহজ করে তোলে। এটি কম বিরাম চিহ্ন ব্যবহার করে, এমনকি একটি ইন্টারেক্টিভ শেল রয়েছে যাতে আপনি আপনার প্রোগ্রামগুলি প্রবেশ করতে পারেন এবং সেগুলি চালানো দেখতে পারেন। এর উপরে, পাইথনের বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা আপনাকে আপনার নিজের গেমগুলি তৈরি করার জন্য সাধারণ অ্যানিমেশনগুলিকে একত্রিত করতে দেয়।

৩। পাইথন সেট আপ করা সহজ

কম্পিউটারে পাইথন ইনস্টল করা সহজ । আপনার কম্পিউটারে পাইথন সেট আপ করতে, আপনাকে যা করতে হবে তা হল সফ্টওয়্যার ডাউনলোড করতে হবে ৷ এই জন্য আপনার অপারেটিং সিস্টেমের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ সর্বশেষ সফ্টওয়্যার রিলিজটি নির্বাচন করা গুরুত্বপূর্ণ। পাইথনের সহজলভ্যতা আপনার বাচ্চাদের বাড়িতে কোডিং অনুশীলন করা সহজ করে তুলবে। বিস্তারিত দেখুন: https://www.python.org/downloads/ 

৪. কোডিংয়ে আগ্রহী বাচ্চাদের জন্য পাইথনের বিকল্প নেই 

ব্যবহারকারী-বান্ধব ডিজাইনের কারণে বাচ্চারা অন্যান্য প্রোগ্রামিং ভাষার তুলনায় যথেষ্ট কম ধাপে কোডের লাইন লিখতে পারে। আসলে, সাত বছরের কম বয়সী বাচ্চারা কোডিং ক্লাস নেওয়া শুরু করতে পারে এবং প্রোগ্রামিংয়ের মৌলিক বিষয়গুলি শিখতে পারে। পাইথনের সাথে, বাচ্চারা তাদের নিজস্ব গেম, অ্যানিমেশন, ওয়েবসাইট তৈরি করে এবং এমনকি রোবোটিক্সের সাথে একীভূত করে তাদের ধারণাগুলিকে বাস্তবে পরিণত করতে সক্ষম হয়!

৫. পাইথন একাডেমিক পারফরম্যান্সে সাহায্য করে

পাইথন শুধুমাত্র বাচ্চাদের সৃজনশীল সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে না, তারা সফ্টওয়্যার থেকে একাডেমিকভাবেও উপকৃত হতে পারে। পাইথন ইংরেজি কমান্ড ব্যবহার করে, যা আপনার বাচ্চাদের লেখার  দক্ষতা উন্নত করে দেয়। যখন তারা পাইথনের সাথে কোডিং শেখে, তখন এটি তাদের লেখায় আরও সংক্ষিপ্ত এবং কাঠামোগত হতে উৎসাহিত করে। বাচ্চাদের জন্য পাইথন ক্লাসগুলি তাদের গণিতের উন্নতি করতে সাহায্য করে, কেবল তাদের মজাদার উপায়ে আরও বিমূর্ত ধারণাগুলি কল্পনা করতে শেখায়। যদিও শ্রেণীকক্ষের সেটিংয়ে  তারা বাস্তব জীবনের পরিস্থিতিতে গণিত প্রয়োগ করার সুযোগ পায় না।

৬. পাইথনের চাহিদা রয়েছে 

পাইথন বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রোগ্রামিং ভাষার মধ্যে একটি। এটি শিল্পে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। যদিও আপনার সন্তানের ক্যারিয়ার সম্পর্কে চিন্তা করা এখনি খুব জরুরি নয় ,কারণ তারা বড় হওয়ার সাথে সাথে তাদের রুচি এবং পছন্দগুলি আলাদা হতে পারে। তবে অল্প বয়সে প্রোগ্রামিং শেখা  শুরু করলে ভবিষ্যতে তাদের সাফল্যের জন্য ব্যাপক সুযোগ পাবে। অধিকন্তু, এটি আজকাল কেবল প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রেই কার্যকর নয়, এইভাবে বাচ্চাদের জন্য পাইথন শেখার সুবিধাগুলি ভবিষ্যতের বিভিন্ন কর্মসংস্থানের সুযোগ  তৈরি করে দিবে !

৭. পাইথন অপেনসোর্স এবং ফ্রি

ম্যাটল্যাব কিংব সি সহ অনেক পোগ্রাম প্রয়োগ করার সময় একটি সমস্যা যেটি হয় তা হল তার বাণিজ্যিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে লাইসেন্স এর প্রয়োজন হয়। আপনি অনেক কষ্টে শিখলেন কিন্তু সেটি প্রয়োগ করবার সময় সেই বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স এর প্রয়োজন হয় যা অনেক সময় অনেক খরচবহুল হয়। অপরদিকে পাইথন অপেনসোর্স এবং সম্পূর্ণ ফ্রি। তাই এটি শেখার পরে প্রয়োগ করার জন্য কোন বেগ পেতে হয়না। 

আপনি প্রবন্ধেরে এখন শেষে এসে নিশ্চয় বুঝেছেন যে কোডিং কেন শিখতে হবে আর কেনই বা পাইথন আপনার শিশু-কিশোরদের জন্য শেখাটা সহজ হবে। তাই দেরি না করে উপরে উল্লেখিত মাধ্যমগুলির মাধ্যমে আপনার সন্তানকে কোডিং শেখানো শুরু করুন। 

তথ্যসূত্র: 

  1. https://careerkarma.com/blog/how-many-coding-languages-are-there/ 
  2. https://www.zdnet.com/article/top-programming-languages-most-popular-and-fastest-growing-choices-for-developers/ 

About নিউজডেস্ক

আমরা বিজ্ঞানের বিভিন্ন খবরাখবর ও বিজ্ঞানীদের সাক্ষাতকার প্রকাশ করি। আপনারা কোন লেখা প্রকাশিত করতে চাইলে যোগাযোগ করুন: editor@biggani.org, biggani.org@gmail.com।

Check Also

নিকোলা টেসলা

কিংবদন্তী প্রকৌশলী ও আবিষ্কারক নিকোলা টেসলা

তিনি ছিলেন একজন কিংবদন্তী প্রকৌশলী ও আবিষ্কারক। আধুনিক পরিবর্তী তড়িৎ প্রবাহ ও পরিবাহীবিহীন তড়িৎ পরিবহন …

ফেসবুক কমেন্ট


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।