Home / তথ্যপ্রযুক্তি - বাংলা কম্পিউটিং / সহজে বাংলা ওয়েবসাইট তৈরী করুন

সহজে বাংলা ওয়েবসাইট তৈরী করুন

অনেকদিন
ধরেই ভাবছিলাম কিভাবে সহজে বাংলায় ওয়েবসাইট তৈরী করা যায় তার একটা
টিউটোরিয়াল লিখব। কিন্তু পেশাগত ব্যস্ততার কারণে তা সম্ভব হয়ে উঠেনি।
লিবিয়া থেকে মোজাম্মেল হোসেন ত্বোহা আজকে তেমনি একটা
অনুরোধ জানালেন। আর আলসেমি না করে এই টিউটোরিয়ালটি লিখলাম। পর্য়ায়ক্রমে
বাংলায় ওয়েবসাইট তৈরীর পদ্ধতি উল্লেখ করব। আশা করব পাঠকরা বাংলায় তাদের
ওয়েবসাইট তৈরীতে উত্সাহিত হবেন।

  • কোথায় আপনার ওয়েবপেজ তৈরী করবেনঃ
    ইন্টারনেটে বেশ কয়েকটি সাইট আছে যেখানে ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারবেন।
    কিছুদিন আগে গুগল সহজে ওয়েবপেজ তৈরীর সিস্টেম চালু করেছে। তবে যে সব ফ্রি
    সাইট আছে সেগুলিতে বিজ্ঞাপন থাকে, এবং সেগুলি এত রঙবেরঙের হয়ে থাকে যে
    পড়তে বেশ অসুবিধা হয়। গুগলের ক্ষেত্রে তেমন বিজ্ঞাপন নেই। গুগলের
    সিস্টেমটি আমি ব্যবহার করে দেখেছি, এবং খুব সহজেই তা দিয়ে ওয়েবপেজ তৈরী
    করতে পারবেন। আজকে গুগল এর মাধ্যমে সহজে ওয়েবসাইট তৈরী করার পদ্ধতি লিখব।
  • ওয়েবপেজ
    html নামে একটি ভাষায় বা কোডে লিখতে হয়, কিন্তু গুগল এর ক্ষেত্রে html
    সমন্ধে কোন জ্ঞান না থাকলেও খুব সহজেই আপনার ওয়েবপেজ তৈরী করতে পারবেন।
    তবে যারা আগ্রহী তাদের এটি শিখবার পরামর্শ দিব কেননা খুটি নাটি পরিবর্তনের
    সময় বেশ সাহায্য করে।
  • প্রথমে আপনার ওয়েব ব্রাউজারে নিম্নের পেজটি খুলুন http://pages.google.com
    ও আপনার জিমেইলের একাউন্ড দিয়ে লগিন করুন। যদি আপনার gmail এর একাউন্ট না
    থাকে তবে আমাকে ইমেইল দিন, আমি নতুন ইমেইল খুলার আমন্ত্রণ পাঠাব। উল্লেখ্য
    যে গুগলের এই সিস্টেমটি এত বেশী জনপ্রিয় যে অনেক সময় নতুন ব্যবহারকারীদের
    লগিন করবার সুবিধা দেয়না। আমিও প্রথমে চেষ্টা করে বিফল হয়ে মনটা খারাপ
    হয়েছিল। ৪/৫ মিনিট পরে আবার চেষ্টা করে দেখলাম তখন লগিন করতে পেরেছি। তাই
    আপনারাও মন খারাপ না করে কিছুক্ষন পরে চেষ্টা করে দেখুন।

Clipboard03.gif

  • লগিন
    করার পরে যে পাতা আসবে তাতে সরাসরি টাইপ করে লিখবেন এবং publish বোতামটি
    ক্লিক দিলে মুহুর্তের মধ্যেই আপনার ওয়েবসাইটটি চালু হয়ে যাবে। ওয়েবপেজটির
    ঠিকানা পেজের ঠিক নিচে লিখা আছে। যখন Publishes to ?? (আপনার ঠিকানা)বোতামটি
    ক্লিক করবেন তখন নতুন একটি পেজ খুলবে এবং আপনার তৈরী করা পেজটি দেখতে
    পাবেন। যে ঠিকানাটি পাবেন, সেটিই আপনার ওয়েবসাইটের ঠিকানা। গুগুল সাধারণত
    ব্যবহারকারীর নাম.googlepages.com এই ঠিকানায় আপনার প্রথম পাতাটি শুরু করে।
    প্রথমে যে পেজটি দিয়ে ওয়েবসাইট শুরু হয় তাকে frontpage বা index পেজ বলি।
    প্রথম পাতায় এইভাবে খুব সহজেই আপনি যা লিখতে চান তা সরাসরি টাইপ করে লিখতে
    পারবেন। যদি publish না করে শুধু সংরক্ষন করে রাখতে চান তবে শুধু save now
    বোতামটি ক্লিক করুন। আপনার এই নতুন ঠিকানাটি আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।
  • গুগল
    ১০০ মেগাবাইটের মত জায়গা আপনাকে ফ্রি দিবে। তবে এটি বেশ অনেকখানি জায়গা।
    আশা করি চার/পাচ বছর অনেক লিখালিখি করেও এটি শেষ করতে পারবেননা।
  • বাংলায় লিখাঃ
    গুগলে এইভাবে ওয়েব পেজ তৈরীতে সরাসরি বাংলায় লিখে আপনার ওয়েবসাইট তৈরী
    করতে পারবেন। বাংলা টাইপের জন্য ইউনিকোড ব্যবহার করুন। বাংলা টাইপের জন্য
    শাব্দিক, অভ্র কিংবা একুশে স্বাধীনতা ব্যবহার করতে পারেন। বিস্তারিত আমার
    ব্লগ বাংলা কম্পিউটিং পড়ুন।
    আলাদা ভাবে অন্য কোন কিছুই করতে হবেনা। বাংলা টাইপের যে কোন সিস্টেমটি
    ইন্সটল করুন ও ব্যবহার করুন এবং গুগলে ওয়েবপেজ লিখবার সময় তা বাংলায়
    লিখুন। ব্যাস, আর কোন জটিলতা নেই, কোন কোডিং করা নেই কোন সমস্য নেই। গুগলে
    আপনার পেজের টাইটেলটি (একদম উপরে যেটি থাকে) বাংলায় লিখলে একটু সমস্যা হতে পারে, তবে মূল অংশে বাংলা কোন সমস্যা করবেনা।

02.gif

  • লিংকঃ
    প্রখম পাতায় আপনার ওয়েবসাইট থেকে অন্য কোন পাতায় যাবার ব্যবস্থাকেই লিংক
    (link page) বলে। যেখানে লিংক রাখতে চান সেই শব্দগুলিকে প্রথমে মার্ক করুন
    তারপরে বামের link বোতমটি ক্লিক করুন। গুগলে লিংক চার ধরনের হতে পারে:
    • Your page: আপনার ওয়েবসাইটর মধ্যে যে পাতাগুলি আপনি তৈরী করেছেন।
    • Your files যদি কোন ফাইল আপনি আপলোড করে থাকেন সেগুলির লিংক দেবার জন্য।
    • Web address অন্য কোন ওয়েবসাইটের লিংক
    • Email address কোন ইমেইল ঠিকানার লিংক

 

  • লেআউট পরিবর্তনঃ
    Change look এবং change layout দিয়ে আপনার ওয়েবপেজের লেআউট ও রঙ পরিবর্তন
    করতে পারবেন। গুগলের অনেকগুলি template রয়েছে সেখান থেকে আপনার পছন্দমত
    টেম্পলেট বেছেনিন। গুগলের সুবিধা হল একবার আপনি ওয়েবপেজ তৈরী করলে এর
    মাধ্যমে খুব সহজেই রং ও লেআউট পরিবর্তন করতে পারেন। এছাড়া বামে আপনি
    ফন্টের রং ও সাইজ পরিবর্তন করবার বোতাম পাবেন। সেগুলি দিয়ে মনের মত ফন্টের
    রঙ পরিবর্তন করুন।
  • ফাইল আপলোডঃ যদি আপনার কোন
    ফাইল (যেমন মাইক্রোসফট ওয়ার্ড কিংবা PDF ফাইল) আপনার ওয়েবসাইটে রাখতে চান
    তবে “Uploaded Stuff” এর নিচে “upload” বোতামটি ক্লিক করে আপনার সেই
    ফাইলটি আপনার কম্পিউটার থেকে গুগলের ওয়েবসাইটে আপলোড করুন। যদি ফাইলটির
    লিংক দিতে চান তবে সেই পাতাটি থেকে লিংক বোতামটি ক্লিক করে লিংক দিতে
    পারেন।
  • গুগলে ওয়েবপেজ তৈরীর বিস্তারিত এর জন্য গুগলের হেল্প অংশটি পড়তে পারেন, যা খুব সহজ ভাষায় লিখা আছে http://www.google.com/support/pages
  • ব্লগ ও ওয়েবপেজের মধ্যে পার্থক্য:
    ব্লগ মূলত অনলাইন ডাইরি বা জার্নাল এর মত, সেখানে আপনি নিয়মিত আপনার কথা
    লিখতে পারেন। আর ওয়েবপেজ হল সাধারণ তথ্য সমৃদ্ধ অংশ। যদি আপনি নিয়মিত
    পাঠকদের আপনার কথা পৌছাতে চান তবে ব্লগ ব্যবহার করুন। আর যদি বিশেষ কিছু
    সমন্ধে লিখতে চান তবে ওয়েবপেজ তৈরী করুন। ব্লগ তৈরীর জন্য www.blogger.com
    ব্যবহার করতে পারেন যা গুগলের তৈরী একটি সিস্টেম। ব্লগার এর ক্ষেত্রেও একই
    ভাবে বাংলায় সরাসরি টাইপ করে বাংলা লিখতে পারেন। বাংলায় ব্লগ তৈরীর জন্য এটি পড়ুন।
  • বাংলা ফন্ট embed করাঃ
    আসলে আপনি বাংলায় টাইপ করে লিখলে পাঠকদের কম্পিউটারে বাংলা ফন্ট না থাকলে
    দেখতে অসুবিধা হবে। তবে বর্তমানে windows xp তে বাংলা সাপোর্ট করে তাই xp
    ব্যবহারকারীদের অসুবিধা হবেনা। তবে যদি আরো অনেক পাঠকদের কাছে আপনার
    বার্তা পৌছাতে চান যারা xp ব্যবহার করেনা, সেক্ষেত্রে বাংলা ফন্ট আপনার
    ওয়েবপেজে embed করতে পারেন। ফন্ট এমবেড করবার জন্য মাইক্রোসফটের WEFT
    ব্যবহার করুন। তবে এটি শুধু মাত্র এক্সপার্টদের জন্য। সহজ ভাষায় তা আমি তা
    পরবর্তিতে লিখব। আপাতত আপনি গুগল দিয়ে ইংরেজী বা বাংলায় আপনার ওয়েবসাইট
    তৈরী করুন।

পরিশেষে
অনলাইনে বাংলার ভান্ডারকে আমাদের আরো সমৃদ্ধ করতে হবে। আর ইউনিকোড বাংলা
ব্যবহার করলে তা একটি স্টান্ডার্ড হিসাবে আপনার ওয়েবপেজটি তৈরী হবে। আপনার
পাতাটি বাংলাতেই google, yahoo কিংবা অন্য কোন সার্চ ইঞ্চিন দিয়েই খুজা
যাবে। তা শুধু মাত্র আমাদের জন্যই নয় আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য হলেও
কম্পিউটারে বাংলাকে সমৃদ্ধ করতে হবে, বাংলায় তথ্য ভান্ডার বাড়াতে হবে।
আমাদের সবার জীবনেই কিছু না কিছু অভিজ্ঞতা রয়েছে বা থাকে যা উচিত সবার
মাঝে ছড়িয়ে দেয়া। সুতরাং সবাই যদি আমাদের নিজ নিজ ক্ষেত্রের অভিজ্ঞতা
বাংলায় লিখে রাখি, নিঃসন্দেহে তা কারো না কারো উপকারে আসবে।

About ড. মশিউর রহমান

বর্তমানে সিঙ্গাপুরে একটি গবেষনাকেন্দ্র বৈজ্ঞানিক হিসাবে কর্মরত।

Check Also

কম্পিউটারের ড্রাইভার সংগ্রহের সহজ পদ্ধতি ।

কম্পিউটার ফরমেট করার পর বেশ কিছু ড্রাইভার সেটাপ করার প্রয়োজন হয় । যেমন – সাউন্ড …

ফেসবুক কমেন্ট


  1. স্যার, আপনি হেডিং-এ লিখেছেন, বাংলায় ওয়েবসাইট তৈরী করা। কিন্তু আপনি ফন্ট এমবেড করার ব্যপারটা একদমই বাদ দিয়ে গেলেন। আমার মনে হয় এই ব্যাপারটা অনেকটা গুরুত্যপূর্ণ ছিল। তাই পরবর্তিতে এই বিষয়টা নিয়ে লিখলে আমি কৃতজ্ঞ হবো। ধন্যবাদ।

  2. Where I can find Boishakhi Bangla Font and writting software that uses Boishakhi Font. I wish to creat Bangla web site. Please help me with info. Email: mainur.bangladesh@gmail.com

  3. ড. মশিউর রহমান

    ধন্যবাদ সবুজ ভাই আপনার মন্তব্যের জন্য। ওয়েবসাইটে ফন্ট কিভাবে সংযুক্ত করবেন তার উপর আমার একটি প্রবন্ধ পড়বার জন্য অনুরোধ করছি।

    http://biggani.com/content/view/44/119/
    এছাড়া EOT তৈরীর উপর রুবনের একটি সুন্দর টিউটোরিয়ালও সেখানে পাবেন।

  4. ড. মশিউর রহমান

    Thanks for your comment. Please note that Boishakhi is not a Unicode font. It is a ANSII font and in future it will not be supported anymore. Rather I will suggest you to use Unicode. With Avro (free) or other Unicode enabled software you can type Bangla and build your website in Bangla. Please read my articles on Bangla-computing related topics and you will find how easy it is and best thing you can do it without any cost.

    I should note that Boishakhi is a commercial software. If you really want to built the website with Boishakhi, please contact with them.

    Thanks again to visit biggani.com

  5. hi, actually i want to make bangla website.using unicode in the html or using embeding font we can build the webpage.do u tell me how to make it vividly. if i choose unicode to implement it , how can i able to convert bangla text(say using bijoy software) to unicode. Here is a question is there any way to store date in db, in the form of unicode, that i can retrieve and able to show in html dynamically.Now if i go for embeding font method to show bangla font , then what i have to do,it will be great if u clearly explain me how .eot font files are used and how they are used using css. im little bit confused. need solution badly.plz give me rly in my email. thanks

  6. ড. মশিউর রহমান

    বিজ্ঞানী.org সাইটটি জুমলা (Joomla) এর বাংলা সংস্করণ ব্যবহার করে তৈরী করা হয়েছে। যার বিস্তারিত পাবেন http://www.joomla.org.bd/

    ফন্ট পরিবর্তন করার জন্য অনলাইন ও অফলাইন সফট ব্যবহার করতে পারবেন। বিস্তারিত দেখুন: http://biggani.com/content/view/26/119/
    http://biggani.com/content/category/4/17/119/
    http://biggani.com/content/view/44/119/
    http://biggani.com/content/view/33/119/
    http://biggani.com/content/view/413/119/

  7. সাইট-সংক্রান্ত সমস্যার জন্য helpdesk এ মেইল করতে outliik express ব্যবহার করাটা অসুবিধাজনক ।

  8. For helpdesk, need another mail number to send mail from anywhere. Pls develop this helpdesk like ubuntu helpline for bangla computing. Thanks.

  9. apna khub valo monar manus.

  10. Google Page Creator has been shutdown
    laka ashse. onno kono babostha dile khusi hobo.

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।